Main Menu

বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বিমান চালুর চুক্তি স্বাক্ষরে নিউইয়র্কে আনন্দ সমাবেশ

বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বিমান চালুর চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ায় দুই দেশের সরকারের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। এ উপলক্ষে স্থানীয় সময় বুধবার রাতে নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের ডাইভারসিটি প্লাজায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ব্যানারে একটি আনন্দ সমাবেশ হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে দলমত নির্বিশেষে রাজনীতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, সাংবাদিক ও মুক্তিযোদ্ধাসহ নানান শ্রেণি-পেশার মানুষেরা অংশ নিয়ে তাদের আনন্দ-অনুভূতি প্রকাশ করেন।

সমাবেশে স্বাগত বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, প্রবাসীদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে বাংলাদেশ বিমানের সরাসরি ফ্লাইট চালু করা। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিউইয়র্ক সফরে এসে প্রবাসীদের কথা দিয়েছিলেন অবিলম্বে ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে বিমানের ফ্লাইট চালু করবেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা কথা দিলে কথা রাখেন। তার কথারই প্রতিফলন ঘটলো বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বিমান চালুর চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে। এর ফলে বহুল প্রতীক্ষিত ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে বাংলাদেশের পতাকাবাহী বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট চালু এখন সময়ের ব্যাপার।

সমাবেশে যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারার রাজনীতিক, শীর্ষস্থানীয় ডেমোক্রেটিক লিডার অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী বলেন, প্রবাসীদের দাবি প্রতি সম্মান দেখিয়ে সরকার যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে তা অত্যন্ত ইতিবাচক। যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যে ইতিমধ্যে এ ব্যাপারে চুক্তি স্বাক্ষরও হয়েছে। তিনি এজন্য ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মিলারকেও ধন্যবাদ জানান।

সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন দেওয়ান ও আব্দুল হাছিব মামুন, প্রচার সম্পাদক হাজী এনাম, সমাজকল্যাণ সম্পাদক মো. সোলায়মান আলী, উপ-দপ্তর সম্পাদক আব্দুল মালেক, কার্যকরী সদস্য শাহানারা রহমান, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জেড এ. জয় প্রমুখ।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল বারী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার চুন্নু, মুক্তিযোদ্ধা শহীদুল ইসলাম, ব্যবসায়ী নেতা মোল্লা মাসুদ, স্বেচ্ছাসেব লীগের কেন্দ্রীয় নেতা সাখাওয়াত বিশ্বাস, নূরুজ্জামান সরদার, কবীর আলী প্রমুখ।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার ঢাকায় সচিবালয়ে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র সরকারের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে বিমান চলাচল চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। এখন থেকে এই চুক্তি দুই দেশের মধ্যে বিমান চলাচলের প্রাথমিক ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে। এই চুক্তির ফলে মুক্ত আকাশ নীতির ভিত্তিতে উভয় দেশ যে কোনো সংখ্যক বিমান সংস্থাকে তাদের মনোনীত বিমান সংস্থা হিসেবে দুই দেশের মধ্যে ফ্লাইট পরিচালনার জন্য মনোনীত করতে পারবে। প্রতিটি দেশের মনোনীত বিমান সংস্থা দুই দেশের মধ্যে আকাশের তৃতীয় ও চতুর্থ মুক্ত অধিকারে যে কোনো এয়ারক্রাফট দিয়ে পরিচালনা করতে পারবে যে কোনো সংখ্যক যাত্রী ও কার্গো বিমান। দুই দেশের মনোনীত বিমান সংস্থা আকাশের পঞ্চম মুক্ত অধিকারে যে কোনো মধ্যবর্তী কিংবা দূরবর্তী পয়েন্টে যে কোনো বিমান দিয়ে যে কোনো যাত্রী ও কার্গো বিমান পরিচালনা করতে পারবে। সেই সঙ্গে উভয় দেশ কোড শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যে পরিচালনা করতে পারবে ফ্লাইট।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *