Main Menu

জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, ট্রেন চলাচল বন্ধ

কয়েক দিনের অবিরাম বর্ষণ ও ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে জামালপুরে বন্যার পরিস্থিতি চরম অবনতি হয়েছে। বুধবার সকাল আটটা পর্যন্ত যমুনার বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ১২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পউবো) জামালপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু সাঈদ এবং পানি মাপক গেজ পাঠক আব্দুল মান্নান।

এদিকে দেওয়ানগঞ্জ বাজার রেলস্টেশনে বন্যার পানির কারণে ট্রেন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। তবে তিস্তা-ব্রহ্মপুত্র এক্সপ্রেস ট্রেন দু’টি ইসলামপুর পর্যন্ত চলাচল অব্যাহত রাখা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জামালপুর রেল স্টেশনের ভার প্রাপ্ত স্টেশন মাস্টার শেখ উজ্জ্বল মাহমুদ এবং দেওয়ানগঞ্জ বাজার স্টেশন মাস্টার আব্দুল বাতেন।

তারা জানান, ইসলামপুর পর্যন্ত ট্রেন আসবে এবং ইসলামপুর স্টেশন থেকেই ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করবে। তারা আরো বলেন, এভাবে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে জামালপুর থেকেই ট্রেন ঢাকা ফেরত যাবে। অপরদিকে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চিকাজানী ইউনিয়নের মন্ডল বাজার অদুরে পাকা রাস্তাটি নদীতে বিলিন হচ্ছে। জেলার দেওয়ানগঞ্জ, ইসলামপুর, মাদারগঞ্জ, মেলান্দহ, সরিষাবাড়ি,বকসিগঞ্জ ও জামালপুর সদর ৭টি উপজেলার ৬৮টি ইউনিয়নের মধ্যে প্রায় ৪০টি ইউনিয়নের বিস্তৃর্ণ এলাকা বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে প্রায় ৫ লাখ মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।

এদিকে ইসলামপুর উপজেলার সাপধুরী, বেলগাছা, চিনাডুলী, কুলকান্দি ইউনিয়নের যমুনার দ্বীপ চরের লোকজন নৌকার অভাবে তাদের ঘরের ধান চাল এমনকি গৃহপালিত পশু নিরাপদ স্থানে নিতে পারছে না বলে বেলগাছা ইউপির চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক জানিয়েছেন। বন্যা কবলিত এলাকার গুলোর মধ্যে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা চুকাইবাড়ী, চিকাজানী, বাহাদুনাবাদ, চর আমখাওয়া, দেওয়ানগঞ্জ সদর ইউনিয়ন ও দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভা, ইসলামপুর উপজেলার পার্থর্শী কুলকান্দি, বেলগাছা, চিনাডুলী, নোয়ারপাড়া, ইসলামপুর সদর, পলবান্দা গোয়ালের চর, গাইবান্দা, চরগোয়ালীনী, চরপুটিমারী ইউনিয়ন ও ইসলামপুর পৌরসভা। মেলান্দহ উপজেলার, কুলিয়া, দুরমুঠ, মাহমুদপুর, শ্যামপুর, নাংলা, আদ্রা,ফুলকোচা, ঝাউগড়া ও ঘোষেরপাড়া ইউনিয়ন। মাদারগঞ্জ উপজেলার গুনারীতলা জোড়খালী, বালিজুড়ি ও চর পাকেরদহ ইউনিয়ন। সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা, আওনা, পোগলদিঘা, সাত পোয়া ও কামরাবাদ ইউনিয়ন। বকশিগঞ্জ উপজেলার সাদুরপাড়া, মেরুরচর, বগারচর, ইউনিয়ন, জামালপুর সদর উপজেলার লক্ষীরচর,তুলশিরচর ইউনিয়ন বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে।

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষসহ গৃহপালিত পশু গরু, মহিষ, ছাগল হাঁস, মরগি পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। এসব এলাকায় বন্যা কবলিত মানুষগুলো উচু বাঁধে, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছেন। বানভাসিদের শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধা পানির, গো খাদ্যের চরম সংকট দেখা দিয়েছে। এদিকে চলতি বন্যায় জামালপুর জেলায় বন্যার পানিতে ডুবে এ পর্যন্ত প্রায় ১২জন মারা গেছে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *