Main Menu

শুটিংয়ে ফেরার জন্য তারকাদের বাসায় মানবিক চিঠি!

অনলাইন ডেস্ক :

করোনা পরিস্থিতিতে নাটকের শুটিং বন্ধ ছিল মার্চ মাস থেকে। এ শিল্পটির সাথে জড়িত বিভিন্ন শ্রেণীর কলা-কুশলীরা পড়ে যায় চরম অর্থ সংকটে। এমন পরিস্থিতিতে নাটকসংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো স্বাস্থবিধি মেনে কাজ করার অনুমতি দিলেও ভয়ে কাজে ফিরতে পারেননি অনেক স্বনামধন্য শিল্পী।

এমতাবস্থায় ‘সবার জন্য আমরা’ এই উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে আরটিভির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ আশিক রহমানের দিক-নির্দেশনায় অনুষ্ঠান প্রধান দেওয়ান শামসুর রকিব যেসকল বিশিষ্ট শিল্পী নাটকের মধ্যমণি তাদের প্রতি কাজে ফেরার আহবান জানিয়ে পত্র পাঠিয়েছেন।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সৈয়দ আশিক রহমান ও দেওয়ান শামসুর রকিব জানান, এরই মধ্যে মোশাররফ করিম, নুসরাত ইমরোজ তিশা, চঞ্চল চৌধুরী, অপূর্ব, আফরান নিশো, তাহসান খান, মেহজাবীন চৌধুরী, তৌসিফ মাহবুব, তানজিন তিসা, সাফা কবিরকে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

চিঠিতে তারকাদের উদ্দেশ্যে বলা হয়, ‘আপনি নিশ্চয় অবগত আছেন, করোনাকালীন এই সময়ে সকলেই বিশেষ পরিস্থিতির মধ্যে দিনযাপন করছে। বৈশ্বিক মহামারি করোনার প্রভাব আমাদের কমবেশি যার যার কর্মক্ষেত্রেও পড়েছে। বিশেষ করে টেলিভিশিন নাটকসংশ্লিষ্ট সকলেই এর বাইরে নয়।

কাজ না হাওয়ার বা থাকায় করোনাকালীন সংকটে অর্থ কষ্টে পড়ছেনে অনকেইে। প্রকাশতি বা অপ্রকাশতি ভাবে সকলইে আমরা বিষয়টি জানি। গত ২০ মার্চ লকডাউন বিবেচনায় হঠাৎ করে শুটিং বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এবং বর্তমানে শুটিং অনুমোদন দেওয়ার পরও পরিস্থিতি বিবেচনায় আপনার মত জনপ্রিয় অভিনয় শিল্পীরা নিয়মিত ভাবে কাজ শুরু না করায় স্বল্প আয়ের শিল্পীরা সীমাহীন অর্থ কষ্টের মধ্যে পড়েছে।

বিস্তারিত ভাবে বললে- আপনার মত শিল্পিরা আরো কিছুদিন কাজ না করলেও হয়তো চলবে কিন্তু টেলিভিশন নাটক সংশ্লিস্ট অন্যান্যরা বলতে- ক্যামেরাম্যান, সহকারি পরিচালক, মেকআপ আর্টিস্ট, প্রোডাকশন বয়, লাইটম্যান, ক্যামেরাসহকারীসহ অন্যান্য কলা-কুশলীরা অনেক অর্থ কষ্টে দিনযাপন করছে। এমন পরিস্থিতিতে টিভি নাটক নির্মাণের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য আপনাদের সহযোগীতা বিশেষ ভাবে প্রয়োজন। ’

যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুটিং সংশ্লিষ্ট সকলের জীবিকার কথা বিবেচনা করে আগামী ঈদে যে কোন চ্যানেলে একাধিক নাটক, টেলিফিল্মে অংশগ্রহণ করার বিনীত অনুরোধ জানিয়েছে আরটিভি।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *