Thu. May 28th, 2020

Sylhetamarsylhet.com

Online News Paper

করোনায় পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা

জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য চিত্র।

অনলাইন ডেস্ক :

আক্রান্ত ১২ লাখ ছাড়িয়েছে, মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৫ হাজারের বেশি

চীন থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের মহামারিতে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। প্রতিদিন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা । সেই সঙ্গে বেড়ে চলছে মৃতের সংখ্যাও।

জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সারা বিশ্বে করনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ১২ লক্ষ ১৮ হাজার ৪৭৪ জন। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে ৬৫ হাজার ৭১১ জন। আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছে দুই লক্ষ ৫২ হাজার ৪৭৮ জন।

যুক্তরাষ্ট্র: বিশ্বে করোনা ভাইরাসে ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে তিন লক্ষ ১২ হাজার ২৪৫ জন। আর নিউ ইয়র্কে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৬২৪ জন। সুস্থ হয়েছে ১৫ হাজার ২১ জন।

ইতালি: দেশটিতে মোট আক্রান্ত হয়েছে এক লক্ষ ২৪ হাজার ৬৩২ জন। মৃত্যু বরণ করেছে ১৫ হাজার ৩৬২ জন। সুস্থ হয়েছে ২০ হাজার ৯৯৬ জন।

জার্মানি: এ দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৯০ হাজার ১০৮ জন। দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৪৪৬ জন। সুস্থ হয়েছে ২৬ হাজার ৪০০ জন।

ফ্রান্স: এখানে আক্রান্ত হয়েছে ৯০ হাজার ৮৫৩ জন। ফ্রান্সে মারা গেছে ৭ হাজার ৫৬০ জন। সুস্থ হয়েছে ১৫ হাজার ৫৭৪ জন।

চীন: হুবেই প্রদেশ থেকে করোনার উৎপত্তি হয়ে মোট আক্রান্ত হয়েছে ৮২ হাজার ৬১৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩২১০ জন। সুস্থ হয়েঠে ৭৭ হাজার ২০৭ জন।

ইরান: আক্রান্ত ৫৮ হাজার ২২৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ৬০৩ জন। সুস্থ ১৯ হাজার ৭৩৬ জন।

যুক্তরাজ্য: আক্রান্ত হয়েছে ৪২ হাজার ৬৮০ জন। মৃত্যু ৪ হাজার ৩১৩ জন। সুস্থ ২১৫ জন।

এছাড়াও তুর্কিতে আক্রান্ত ২৩ হাজার ৯৩৪, সুইজারল্যান্ডে আক্রান্ত হয়েছে ২১ হাজার ১১০, বেলজিয়ামে আক্রান্ত হয়েছে ১৯ হাজার ৬৯১, নেদারল্যান্ডে আক্রান্ত হয়েছে ১৬ হাজার ৭২৯, কানাডায় আক্রান্ত ১৪ হাজার ১৮, অস্ট্রিয়ায় আক্রান্ত ১১ হাজার ৬১ জন আক্রান্ত হয়েছে। আরও আক্রান্ত দেশগুলোর মধ্যে পর্তুগালে ১২৭৮, ব্রাজিলে ১০৩৬০, দক্ষিণ কোরিয়ায় ১০২৩৭, ইসরাইলে 8০১৮, সুইডেনে ৬৪৪৩, অস্ট্রেলিয়ায় ৫৬৮৭, নরওয়েতে ৫৬৪৫, রাশিয়ায় ৫৩৩৯ জন।

মৃতের সংখ্যায় অন্যান্য দেশর মধ্যে রয়েছে ইন্দোনেশিয়ায় ১৯৮, দক্ষিণ কোরিয়ায় ১৮৩, ডেনমার্ক ১৭৯, ইকুয়েডর ১৭২, ফিলিপাইনে ১৫২ জন, রোমানিয়ায় ১৪৮, আয়ারল্যান্ডে ১৩৭, পোল্যান্ড ৮৪, মেক্সিকোয় ৭৯ জন।