Main Menu

যে কোনো দুর্যোগে পরীক্ষা ছাড়াই ফল প্রকাশ করতে পারবে শিক্ষা বোর্ড

অনলাইন ডেস্ক রিপোর্ট :

শিক্ষা বোর্ডগুলোর আইনে পরীক্ষা বা মূল্যায়ন ছাড়া ফল প্রকাশের কোনো বিধান নেই। এ কারণে শিক্ষা বোর্ডগুলোর আইন সংশোধন হচ্ছে। গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড (সংশোধিত) অধ্যাদেশ, ১৯৬১’ এবং সংশোধিত ‘বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড আইন, ২০১৮’ ও ‘বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড আইন, ২০২০’-এর খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়। সংশোধিত আইন অনুযায়ী, পরীক্ষা বা মূল্যায়ন ছাড়াই যে কোনো দুর্যোগে ফল প্রকাশ করতে পারবে শিক্ষা বোর্ডগুলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভা এ অনুমোদন দেয়। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী ও সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রান্ত থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেন।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ কক্ষ থেকে বেরিয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সাংবাদিকদের বলেন, আগামী ১৮ জানুয়ারি সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে সংশোধিত আইন উপস্থাপন ও পাশের পর এইচএসসির ফলাফল প্রকাশ করা হবে। তিনি বলেন, এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশে সংশোধিত মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড আইন অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এখন আর অধ্যাদেশ হচ্ছে না। সংশোধিত আইন অনুযায়ী দুর্যোগকালীন পরীক্ষা নিতে সক্ষম না হলে মূল্যায়ন তথা ফলাফল দেওয়ার বিধান যুক্ত করা হয়েছে। বিদ্যমান আইনে পরীক্ষা ছাড়া ফল প্রকাশের বিধান নেই।

এছাড়া বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, আগামী ২৮ জানুয়ারির মধ্যে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগ থেকে প্রস্তাব করা হয়েছিল অধ্যাদেশ করে আগামী বুধবার, বৃহস্পতিবার বা শনিবারের মধ্যে (এইচএসসি) ফলাফল দেওয়া যায় কি না। কিন্তু আগের আইনের বিধান হলো, পরীক্ষা নিয়ে ফলাফল দিতে হবে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘আর মাত্র সাত দিন পর সংসদ বসবে। কেবিনেট সিদ্ধান্ত দিয়েছে, এখন যদি আমরা অর্ডিন্যান্স করি, তবে আবার অর্ডিন্যান্স গিয়ে পার্লামেন্ট থেকে এসে ভেটিং করতে করতে সময় পাওয়া যাবে না। কারণ মাত্র ১০ দিন পার্লামেন্ট বসবে। অধিবেশনের প্রথম দিনই পাশ করে ফেলা হবে।’

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, মন্ত্রিসভা সিদ্ধান্ত দিয়েছে, এটা অর্ডিন্যান্স করার দরকার নেই। এটা ভেটিং সাপেক্ষে সরাসরি অনুমোদন দেওয়া হলো। প্রথম দিনই এটা পুটআপ করে দুই-তিন দিনের মধ্যে আইন করে যাতে ২৫, ২৬ বা ম্যাক্সিমাম ২৮ জানুয়ারির মধ্যে ফলাফল দিয়ে দেওয়া যায়।

প্রতি বছর এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়ে থাকলেও এবার মহামারির কারণে পরীক্ষা নেওয়া যায়নি। এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ৭৮৯ জন শিক্ষার্থীর অংশ নেওয়ার কথা ছিল।

করোনা মহামারির কারণে এ বছর পরীক্ষা না নিয়ে এসএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে উচ্চমাধ্যমিকের ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এজন্য জেএসসি-জেডিসির ফলাফলকে ২৫ এবং এসএসসির ফলকে ৭৫ শতাংশ বিবেচনায় নিয়ে ফল ঘোষিত হবে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে পিরোজপুরে

পিরোজপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হবে। এজন্য ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পিরোজপুর আইন, ২০২০’-এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, আইনের খসড়াটি মন্ত্রিসভার নীতিগত অনুমোদন পাওয়ায় এখন পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে যাবে। আইন মন্ত্রণালয়ের ভেটিং শেষে এটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য আবারও মন্ত্রিসভায় তোলা হবে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

বিচারকদের আর্থিক এক্তিয়ারের পরিমাণ বাড়ল

দেশের সিভিল কোর্টগুলোতে বিচারকদের আর্থিক এক্তিয়ারের পরিমাণ বাড়ল। এ জন্য ‘দ্য সিভিল কোর্টস (অ্যামেনমেন্ট) অ্যাক্ট, ২০২১’-এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। সম্পত্তি সংক্রান্ত বিচার সিভিল কোর্টে হয়ে থাকে। সিভিল কোর্টগুলোর বিচারিক এক্তিয়ারের পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সহকারী জজের আর্থিক এক্তিয়ার (জমি বা সম্পত্তির মূল্য) ২ লাখ থেকে বাড়িয়ে ১৫ লাখ টাকা, জ্যেষ্ঠ সহকারী জজের ৪ লাখ থেকে বাড়িয়ে ২৫ লাখ টাকা এবং আপিল শুনানির ক্ষেত্রে জেলা জজের এক্তিয়ার ৫ লাখ থেকে বাড়িয়ে ৫ কোটি টাকা করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, যুগ্ম-জেলা জজ অনধিক ৫ কোটি টাকা মূল্যমানের মূল মোকদ্দমায় প্রদত্ত ডিক্রি বা আদেশ থেকে উদ্ভূত হাইকোর্ট বিভাগের বিচারাধীন কোনো আপিল বা কার্যক্রম জেলা জজ আদালতে স্থানান্তরের বিধান রাখা হয়েছে। এটা আগে হাইকোর্টে যেতে হতো। বর্তমান আইনে ৫ কোটি টাকার কোনো আপিল হলে হাইকোর্টে যাওয়া লাগে। আইন সংশোধন হলে জেলা জজ সেই আপিল শুনানি করতে পারবেন বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *